H i , Guest

Notice: We Need Some Editor For Maintain Our Site.

Search

Home » Ghost Stories » ভ্যাম্পায়ার কিং পর্ব-১ লেখক:গোস্ট কিং(রাকিব)

About 1 month ago 101 Views

administrator

ভ্যাম্পায়ার কিং
.
পর্ব-১
লেখক:গোস্ট কিং(রাকিব)
__________________
ট্রেনে উঠলাম।
কিছুক্ষণ পরেই আপন গতিতে ছুটে চলতে লাগলো ট্রেনটি।
জানালার পাশে বসে দেখতে লাগলাম আমাদের সোনার বাংলার সোনালী দৃশ্য।
চোখটা যেন জুড়িয়ে যাচ্ছে।
ট্রেন চলতে থাক আর এই ফাঁকে আমার পরিচয়টা আপনাদের দিয়ে নেই।
.
আমি রাকিব।পেশায় একজন সি.আই.ডি অফিসার।শুধু পেশা হলে ভালো হতো।এটাই আমার সবচেয়ে বড় নেশা।তাই শত চেষ্টার পরেও নিজের জন্য ছুটি বের করতে পারিনা।কিন্তু দেশে রাজনৈতিক কারণে সামরিক বাহিনীরা সব নাজেহাল অবস্থায় পড়ে গেছে।আর এই সুযোগে গ্রামের বাড়ি যাবার জন্য ছুটি নিয়ে নিলাম আমি।
.
আমার গ্রাম থেকে বেশ কিছু দূরে ট্রেন স্টেশন।ট্রেন যখন থামলো রাত তখন ৯ টা মতো বাজে।শহরে এটা কোনো রাতই না।তবে গ্রামে এটাই গভীর রাত।
.
শত চেষ্টা করেও একটা রিকশা বা ভ্যান জোটাতে পারছিনা।কেউ যদি যেতে চাইছে তো আমার গ্রামের নাম শুনেই কোনো কথা না বলে পালিয়ে যাচ্ছে।কিছুই বুঝতে পারছি না আমি।আগে তো এমন কখনো হতো না।
.
অবশেষে বাধ্য হয়ে হেঁটেই রওনা দিলাম বাড়ির দিকে।
অনেকদিন পর ফিরছি।বাড়ি ও আত্নীয় স্বজনদের জন্য কিছূ জিনিস নিতেই হয়েছে।অনেক কষ্ট দুটি ব্যাগ নিয়ে হেঁটে যাচ্ছি।
.
চারিদিকে সুনশান নীরবতা।কোথাও কোনো মানুষ তো দূরের কথা একটা রাতজাগা পাখি পর্যন্ত নেই।
হঠাৎ গ্রামের শুরুতেই জঙ্গলের ধারে দেখতে পেলাম একটা পাগল শুয়ে আছে।
.
আমি পাত্তা দিয়ে পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছি।তখনি পাগলটা ডেকে উঠলো-
পাগল:এই এই এই খাড়া খাড়া।খাড়া কৈতাছি।কোনে যাওয়া অইতাছে… অ বূজছি মরার পাখনা গজাইছে তাইনা…খাড়া আমিই তরে মরণের সাদ বুজাইতাছি…
.
এই গভীর জঙ্গলে পাগলের এমন প্রলাপ শুনলে সত্যিই যে কারোর শরীর হিম করার মতো অবস্থা হবে।তবে এসব ব্যাপারে অভ্যস্ত আমি।তাই কিছু না বলে চলে যেতে লাগলাম।
কিন্তু আচমকা পাগলটা পেছন থেকে এসে আমার কোমর শক্ত করে চেপে ধরলো।
আমি যেন আর চুল পরিমাণ সামনে এগুতে পারছি না।ধস্তাধস্তি করেও পেরে উঠছি না পাগলটার সাথে।
.
কিছু বুঝতে পারছিনা।একটা পাগলের গায়ে এতো শক্তি এলো কি করে।পরিস্তিতি খুব খারাপের দিকে যাচ্ছে।পাগলটা বারবার আমার ঘাড়ে কামড় দিতে চাইছে আর আমাকে মাটিতে ফেলে দিতে চাইছে।
এতকক্ষণে সত্যিই ভয় পেয়ে গেছি আমি।কোমরে থাকা পিস্তলে হাত দিয়েও ভাবলাম,”শুট করতে গেলেও তো ফায়ারিং অর্ডার লাগবে।”
কি যে করি এখন।হঠাৎ মাথায় এলো আমার কাছে প্রমাণ থাকলেই তো আর ঝামেলা নেই।তাই শার্টের কলারে থাকা হিডেন ক্যামেরাটা অন করে দিলাম।
.
ততক্ষণে পাগলটা আমাকে মাটিতে শুইয়ে দিয়ে আমার বুকের ওপর বসে গেছে।কেমন যেন হিংস্র দেখাচ্ছে পাগলটাকে। ওর ঠোঁটের দুই কোণে চিকচিক করছে লম্বা দুটি দাত।আস্তে আস্তে মাথা নিচু করছে পাগলটা। ঘাড়ের কাছে এসে দাত বসিয়ে দেবে আমার শিরাতে।তখনি কোমর থেকে পিস্তল বের করে টিগারে চাপ দিলাম।
.
গুলি লাগতেই পাগলটা একদম থমকে গেল।কোন চিৎকার করল না,এমনকি ওর শরীর থেকে কোনো প্রকার রক্তও বের হলোনা।আমার বুকের ওপরেই থমকে বসে রইলো।
তারপরেই ঘটলো এক ভয়ানক ঘটনা।যা মনে হলেই ভয়ে শরীর কাঁপতে থাকে।
আমার বুকের ওপর থেকেই আস্তে আস্তে অদৃশ্য হয়ে যেতে লাগল পাগলটি।একসময় সম্পূর্ণ বাতাসে মিলিয়ে গেল।
ভয়ে আৎকে উঠলাম আমি।উঠে দাড়ানোর শক্তিও পাচ্ছি না।
কিছুক্ষণ ওখানেই মরার মতো পড়ে থাকলাম।এরপর উঠে ব্যাগদুটো নিয়ে চলে গেলাম বাড়িতে।
.
বাড়ি গিয়েই দেখি আমার দেরী দেখে সবাই দুশ্চিন্তা করছে।
.
মা:কেমন আছিস বাবা? ফিরতে এতো রাত হলো কেনো তোর?
.
আমি:কিছুনা মা।এমনিই একটু দেরী হয়ে গেল।
.
ইভা:কিছুনা তাইনা।কোন মেয়ের সাথে দেখা করে আসলি হু..
.
আমি:ওই পেতনি,আমি যার সাথেই দেখা করি তাতে তোর কি হুম।
.
ইভা:দেখছো ফুপি.. তোমার ছেলে কি বলছে? মাথা ফাটিয়ে দিবো কিন্তু ওর।
.
মা:উফ তোদের জ্বালায় আর পারিনা।আসতে না আসতেই শুরু হয়ে গেছে।তোরা যে কিভাবে সংসার করবি আল্লাহই জানে।
.
ইভা:আমার কি দোষ।তোমার ছেলেই তো আগে আগে ঝগড়া লাগায়।
.
মা:হইছে এখন থাম।এই রাকিব,তুই ফ্রেশ হয়ে আয় যা…
.
আমি ফ্রেশ হয়ে ঘরে ঢুকতেই দেখি ইভা আমার ঘরে এসে আমার জামা কাপড় ব্যাগ থেকে বের করে গুছাইতেছে।
.
ও হো… এখনো তো বলাই হয়নি কে ইভা।
ইভা হচ্ছে আমার কাজিন।আর ওর সাথে আমার বিয়ে ঠিক হয়ে আছে সেই ছোটবেলা থেকে।আমার আসার খবর পেয়ে আমার বাড়ি চলে এসেছে দুইদিন আগেই।আর আমরা সমবয়সী।তাই মাঝে মাঝে তুই বলেই ডাকি।
.
হঠাৎ ইভা আমাকে ডেকে বললো,”এই শোন না,তোমার শার্ট প্যান্টে এতো ধুলো কেনো?”
.
থতমত খেয়ে গেলাম আমি।কি জবাব দিবো ওকে।মিথ্যের আশ্রয় নিতে হবে।তাই বললাম,”আর বলোনা।জঙ্গলের ওখানে একটা গর্তে হোচট খেয়ে পড়ে গেছিলাম।”
.
ইভা:মিথ্যে বলছ তুমি।পড়ে গেলে শার্ট ছিড়ে যেতো না আর রক্তও লেগে থাকতো না।
.
কি আর করার।পুরোটা খুলে বললাম ইভাকে।
ইভা আর কিছু বললো না।কেমন যেন মনমড়া হয়ে গেল।
শুধু বললো,”অনেক রাত হয়ে গেছে।ঘুমিয়ে পড়ো।কাল কথা হবে।”
তারপর চলে গেল।
.
কিছুই বুঝতে পারলাম না।ইভা আমার সাথে এমন করলো কেনো?
.
আমি আর বেশি চিন্তাভাবনা না করে ঘুমিয়ে পড়লাম।
সকালে কারো মিষ্টি ছোয়ায় ঘুম ভাঙ্গলো আমার।
দেখি ইভা আমার বুকে মাথা রেখে শুয়ে ডাকতেছে আমাকে।
.
ইভা:এই ওঠো.. ফ্রেশ হয়ে নাস্তা করতে আসো।
.
আমি:না উঠবোনা।রাতে ওভাবে চলে গেলা কেনো?
.
ইভা:সব বলবো পাগল।বিকেলে ঘুরতে বের হয়ে সব বলবো।এখন তো ওঠো..
.
আমি:না।আগে একটা দাও তাহলে উঠবো…
.
ইভা:ঐ আমি কি তোর বউ নাকি হুম।ওঠ শয়তান..
.
এই বলে ইভা টেনে উঠালো আমাকে।
তারপর আমার দেওয়া নীল শাড়িটা পড়ে একসাথে ঘুরতে বের হলাম বিকেলে।
.
পুকুরপাড়ে বসে ইভা যা বললো তাতে চমকে উঠলাম আমি।
মনে মনে বললাম,”হয়তো আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন কেস হাতে নিতে যাচ্ছি আমি…”
.
.
>চলবে…
.
.
>কেমন হলো জানাবেন কিন্তু..

3 responses to “ভ্যাম্পায়ার কিং পর্ব-১ লেখক:গোস্ট কিং(রাকিব)”

  1. Rasel
    (administrator)

    Nice

  2. ridoymini
    (author)

    সুন্দর পোস্ট।

Leave a Reply

Related Posts

ভ্যাম্পায়ার কিং গল্পের সব পর্বের লিংক

Posted By: - 4 weeks ago - 1 Comment

ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-৪

Posted By: - 4 weeks ago - 2 Comments

ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-৩

Posted By: - 1 month ago - 7 Comments

ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-২; লেখক:ধ্রুবতারা(রাকিব)

Posted By: - 1 month ago - 2 Comments