H i , Guest

Notice: We Need Some Editor For Maintain Our Site.

Search

Home » Ghost Stories » ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-৩

About 1 month ago 93 Views

administrator

ভ্যাম্পায়ার কিং
.
পর্ব-৩
লেখক:ধ্রুঁবঁ’তাঁরাঁ (রাকিব)
“*”*”*”*”*”*”*”
“”””””””””””””””””
আমার গলার শিড়া থেকে রক্ত চুষে খেয়ে নিচ্ছে বাদুড়টা।
ওটার গরম নিঃশ্বাসে ঝলসে যাচ্ছে আমার গলার চামড়া। ওটা আমার বুকের ওপর এমনভাবে বসে আছে যে আমি চুলপরিমাণ নড়াচড়া করতে পারছিনা। আস্তে আস্তে চোখ বুজে আসছে আমার।হঠাৎ চারটে গুলির শব্দ শুনলাম।আমার আর কিছু মনে নেই…
.
যখন জ্ঞান ফিরলো দেখলাম আমি আমার ঘরে শুয়ে আছি। ইভা,মা আমার পাশে বসে কেঁদেই চলেছে।হঠাৎ পেছন থেকে কে যেন বলে উঠলো-
“এখন কেমন লাগছে মি. ভ্যাম্পায়ার হান্টার?”
.
পেছনে তাকিয়েই দেখি আমার টিমের চারজন চলে এসেছে। মুচকি হাসি দিয়ে বললাম,”কিরে তোরা কখন এলি?”
.
জয়:কাল রাতে।স্যার বললেন যে তুই এখানে একটা ডিফিকাল্ট কেস নিয়েছিস।তাই স্যার আর দেরি করতে দিলেন না আমাদের।আমরাও ভাবলাম তোকে কিছু না বলে এসে সারপ্রাইজ দিবো।কিন্তু পথে তোকে যে এইভাবে দেখতে পাবো ভাবতেই পারিনি।
.
আমি:আরে ইয়ার.. ওগুলো বাদুড়ের আকৃতির হলে কি হবে। এক একটার গায়ে যেন বাঘের মতো শক্তি আর ওজন হাতির মতো।গায়ের ওপর বসলে পুরো শরীর যেন বিকল হয়ে যায়।
.
সজল:হুম বুঝলাম।কিন্তু এটা কিছুতেই মানতে পারছিনা,তোর মতো চিতাবাঘকে একটা ছোট্ট বাদুড় কিভাবে ঘায়েল করে ফেলল..
.
জোড়ে কেঁদে উঠলো ইভা।তারপর কাঁদতে কাঁদতে বলতে লাগলো,”বারবার বারণ করেছিলাম যেওনা কোখাও।রাতে একা বের হয়োনা।কে শোনে কার কথা।এখন হলো তো.. যা তুই মর গিয়ে।আমার কি…”
.
বুকে টেনে নিলাম ওকে।
ইভা প্রলাপ করে বলতে লাগলো,”ছুবি না আমায়।আমি কে তোর।”
.
আমি কি বলব ওকে নিজেই বুঝতে পারছিনা।শরীরটা খুব ক্লান্ত লাগছে।আবার শুয়ে পড়লাম আমি।
.
জয়:ভাবি রাকিবের এখন রেস্ট দরকার।অনেক রক্তক্ষরণ হয়েছে।ওকে বরং এখন হালকা কিছু খেতে দিন।খেয়ে রেস্ট নিক।
.
এরপর ইভা আমাকে খাইয়ে দিলো।খাওয়ার পর লম্বা একটা ঘুম দিলাম।এক ঘুমে বিকেল হয়ে গেল।
দেখলাম ইভা আমার বুকে মাথা রেখে ঘুমিয়ে আছে।ওকে না ডেকে আমিও চুপ করে শুয়ে থাকলাম। একটু পরেই ঘুম ভাঙ্গলো ইভার। ও মাথা তুলতেই দেখলাম ওর চোখ এখনো ভেজা।
.
আমি:এই পাগলী এখনো কাঁদছো? আমি তো এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।
.
ইভা কিছু না বলে চোখ মুছতে লাগলো।
.
আমি:জয়,সজল ওরা কোথায়?
.
ইভা:তুমি শুয়ে থাকো আমি ডেকে দিচ্ছি।
.
একটু পর ওরা এলো।
সজল:কিরে এখন কেমন লাগছে?
.
আমি:হুম ভালো।জয় আমার ল্যাপটপ টা আন তো…
.
জয় ল্যাপটপ টা অন করলো।তারপর ওদেরকে ক্যামেরায় রেকর্ড হওয়া ভিডিওগুলো দেখাতে লাগলাম।ওরা খুব আশ্চর্য হয়ে গেল এমন অবস্থা দেখে।
.
তারপর বিকেলে ওদের নিয়ে গ্রাম ঘুরতে বের হলাম।ঘুরতে ঘুরতে চলে গেলাম গ্রামের শুরুতে সেই জঙ্গলের কাছে।পাঁচজনে মিলে জঙ্গলের ভেতরে ঢোকার সিদ্ধান্ত নিলাম।যেতে যেতে অনেকটা ভেতরে ঢুকে গেলাম।হঠাৎ দেখলাম বিশাল একটা বাড়ি।দেখতে পুরো রাজপ্রাসাদের মতো। সবাই অবাক হয়ে গেলাম আমরা।এই গভীর জঙ্গলে রাজপ্রাসাদ এলো কি করে।এই গ্রামে তো কোনোকালেই রাজা কিংবা কোনো জমিদার ছিলো না।তবে এই প্রাসাদটাই বা এলো কি করে।দেখে তো মনে হচ্ছে অনেক পূরোণো এই প্রাসাদ।দেয়াল খসে পড়েছে জানালা ভেঙ্গে গেছে।মোটকথা একেবারে ভাঙ্গাচোড়া একটা রাজবাড়ি।
মনে বিস্ময় নিয়েই এগিয়ে গেলাম বাড়িটার দিকে।বাড়িটার চারপাশ ঘুরে দেখলাম।দেখার পর শুধু যে অবাক হলাম তা নয় ভয়ও পেয়ে গেলাম।এতো বড় একটা প্রাসাদ অথচ ভেতরে ঢোকার মতো কোনো দরজা নেই।চারপাশেই দেয়াল।
.
জয়:এই রাকিব।এটাই আবার ভ্যাম্পায়ারদের আস্তানা নয় তো?
.
আমি:এই বিষয়ে মনে কোনো সন্দেহ রাখিস না।
.
নীলয়:মানে? তুই কিভাবে এতোটা কন্ফার্ম হচ্ছিস?
.
আমি:কারণ আমাদের গ্রামে কশ্চিনকালেও কোনো রাজা বা জমিদার ছিলো না।আর এই প্রাসাদের ধরণ দেখেও বুঝতে পারছিস না?জয়:হতেই পারে কোনো শৌখিন রাজা এমন প্রাসাদ তৈরি করে মাটির নিচ দিয়ে রাস্তা করে তার আন্ডারগ্রাউন্ড প্রাসাদ বানিয়েছেন।কিন্তু রাকিব বলছে এখানে কোনো রাজা ছিলো না।তাহলে রাজার অপশন আনার তো প্রশ্নই আসে না।
.
আমি:হুম ঠিক বলেছিস।এটা নিশ্চই ভ্যাম্পায়ার কিং এর প্রাসাদই হবে।কেননা তাদের বের হতে দরজা লাগে না।ওই ভাঙ্গা জানালার ফুটোটাই যথেষ্ট।
.
এবার সবাই আমার সাথে একমত হলো।হঠাৎ তন্ময় বলে উঠলো,”আরে ইয়ার ফুল প্লান করার আগেই কি ভ্যাম্পায়ারদের সামনে পড়তে চাস নাকি।কটা বাজে খেয়াল করেছিস?”
.
তন্ময়ের কথায় এখানের ঘোর কাটলো আমাদের।ঘড়িতে দেখলাম ছয়টা বাজে।একটু পড়েই সন্ধ্যা হয়ে যাবে।এখানে আর থাকা ঠিক হবেনা ভেবে সেদিনের মতো চলে এলাম।জায়গাটা এতই নির্জন ও ভৌতিক যে দিনের বেলাতেও কেঊ একা যাওয়ার সাহস করবেনা।আর এতোই ঠান্ডা যে মনে হয় ওখানে তাপমাত্রা 10′ এর ওপরে হবেনা।
.
ফিরতে ফিরতে ওদেরকে বলে দিলাম,”ইভার সামনে এই ব্যাপারে কোনো কথা নয়।ওকে..”
.
সবাই মেনে নিলো।যখন বাড়ি ফিরলাম ততক্ষণে সন্ধ্যা হয়ে গেছে।
ইভার ভাব দেখেই বুঝতে পারলাম আমার ওপর চটে আছে।যাইহোক রাতে খাওয়ার পর সবাই ঘুমিয়ে পড়লে তন্ময়,সজল,জয় ও নীলয় আমার ঘরে এলো।আমাদের আজ রাতেই সব প্লান শেষ করতে হবে।কারণ সময় খুব কম।
.
হঠাৎ ইভার ঘর থেকে চিৎকার শুরু হয়ে গেল।কোনোরকমে ব্যাগ থেকে পিস্তলটা কোমরে গুজে দৌড়ে ইভার ঘরের দিকে চলে গেলাম।ভেতর থেকে দরজা লাগানো।
আমি চিৎকার করে ডাকলাম,”ইভা দরজা খোলো।ইভা…”
কিন্তু ওপাশ থেকে ইভার আর্তনাদ ছাড়া আর কিছুই শুনতে পাচ্ছি না।একটু পর তাও থেমে গেল।বুকের ভেতরটা কেঁপে উঠলো।কিছু হয়ে গেলো না তো ইভার…
.
পাঁচজনে মিলে জোড়ে দরজাতে ধাক্কা দিতেই ছিটকানি ভেঙ্গে দরজা খুলে গেল।
ভেতরে ঢুকেই একেবারে পাথরের মতো দাড়িয়ে গেলাম আমি।পুরো শরীর যেন বিকল হয়ে গেছে। বিছানায় অজ্ঞান হয়ে পড়ে আছে ইভা আর একটা বাদুড় রুপী ভ্যাম্পায়ার ওর দেহ থেকে রক্ত শুষে নিচ্ছে।পরপর পাঁচটা গুলি করলাম বাদুড়টাকে।অদৃশ্য হয়ে গেল ওটা।তারপর দ্রূত হাসপাতালে নিয়ে গেলাম ইভাকে…
.
.
#চলবে__
(y) কেমন হচ্ছে জানাতে ভূলবেন না কিন্তু.

7 responses to “ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-৩”

  1. RtRasel
    (author)

    Nice post.

  2. Rasel
    (administrator)

    Nice, next part pls.

  3. ridoymini
    (author)

    সুন্দর পোস্ট

  4. ridoymini
    (author)

    nice

  5. ridoymini
    (author)

    রাকিব ভাই আপনার facebook profile link den

Leave a Reply

Related Posts

ভ্যাম্পায়ার কিং গল্পের সব পর্বের লিংক

Posted By: - 4 weeks ago - 1 Comment

ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-৪

Posted By: - 4 weeks ago - 2 Comments

ভ্যাম্পায়ার কিং; পর্ব-২; লেখক:ধ্রুবতারা(রাকিব)

Posted By: - 1 month ago - 2 Comments

ভ্যাম্পায়ার কিং পর্ব-১ লেখক:গোস্ট কিং(রাকিব)

Posted By: - 1 month ago - 3 Comments