H i , Guest

Notice: We Need Some Editor For Maintain Our Site.

Search

Home » Love Stories » অপূর্ন ভালবাসা (পর্ব-৩)

About 1 week ago 20 Views

author

হৃদয় দেখতে পেলো যে শ্রুতি তার দিকে দৌড়ে আসতাছে।তাকে দেখে হৃদয় দাঁড়িয়ে গেলো

—এই হৃদয় তুমি মানুষ নাকি অন্যকিছু।৫ দিন থেকে ফোন অফ কেন তোমার।তুমি জানো তোমার জন্য আমার কত কষ্ট হচ্ছিলো।…….(শ্রুতি)
—আমার ফোনটা হারিয়ে গেছে।………(হৃদয়)
—ওহ! তাহলে অন্য কারো ফোন আমায় জানাতে পারতে তো।জানো কতটা কষ্ট হচ্ছিলো আমার।…..(শ্রুতি)
—-প্রয়োজন মনে করিনি,তাই জানাই নাই।……….(হৃদয়)
—-ওহ!… তাই তো।…..+শ্রুতি)( শ্রুতির মনে মনে খুব কষ্ট পাচ্ছিলো।হৃদয়ের এভাবে কথা বলা দেখে) —আমার অনেক কাজ আছে,আমি এখন যায়।…..(হৃদয়)
—ওকে যাও।……(শ্রুতি)


হৃদয় চলে গেলো।
শ্রুতির খুব কান্না পাচ্ছে আজ।কারন ১০ দিন পর দেখা অথচ হৃদয় তার সাথে ঠিক মতো কথাও বললো না।
শ্রুতি ভাবতে পারছেনা, যে হৃদয় তাকে ছাড়া ১ মুহুর্ত থাকতে পারেনা আর সেই হৃদয় ১০ দিন পর দেখা হলো কিন্তু ঠিক মতো কথাও বললো না।শ্রুতি চোখের জল আর লোকাতে পারলো না।শ্রুতি কাদতে কাদতে কলেজ থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছে।এমন সময় মিম শ্রুতি কে দেখতে পেলো।


—এই শ্রুতি,কি হয়ছে তোমার কাদছো কে।আর আজ তো হৃদয় কলেজে এসেছে।…….(মিম)
—কিছুই হয়নি(চোখের জল মুছতে মুছতে বললো শ্রুতি)।….(শ্রুতি)
—নিশ্চয় হৃদয়ের সাথে কিছু হয়ছে তোমার।…… (মিম)
মিম যখন এই কথা বললো,তখন শ্রুতি মিম কে জরিয়ে ধরে জোরে জোরে কাদতে লাগলো,আর বললো।
—জানো মিম,আজ ১০ দিন পর হৃদয়ের সাথে দেখা হলো অথচ সে আমার সাথে ঠিক মতো কথাও বললো না।১০ দিনে অনেক পালটে গেছে হৃদয়।……(শ্রুতি)
–আরে না কিছুই হয়নি,সব ঠিক হয়ে যাবে।যাও এবার বাসাই যাও।……(মিম)
এই বলে মিম শ্রতি কে বাসাই পাঠিয়ে দিলো।আর ভাবতে লাগলো হৃদয়ের কথা। শ্রুতি বাসাই চলে এসেছে আর ফোন সামনে নিয়ে বসে আছে।সে ভাবছে হৃদয় তাকে ফোন দিবে।রাত হয়ে গেছে কিন্তু হৃদয়ের কোনো ফোন তার কাছে আসেনি।শ্রুতি খুব কাদছে আর কাদতে কাদতে কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছে নিজেও জানে না।
সকাল হয়ে গেছে তাই শ্রুতি রেডি হয়ে কলেজ এ চলে আসলো।


এসেই দেখতে পেলো আকাশ কে।
—এই আকাশ হৃদয় কে কোথাই।……..(শ্রুতি)
—এখানেই তো ছিলো,মনে হয় ঐ দিকে গেছে।……(আকাশ)
—চলো তো তাকে খুজে বের করি।…….(শ্রুতি)
—-ওকে চলো।……(আকাশ)
এই বলে দুজনে হৃদয় কে খুজতে লাগলো।এমন সময় দেখতে পেলো হৃদয় একা একা বসে আছে।
—এই হৃদয়,,,, তর রাজকুমারী তকে কখন থেকে খুজতাছে।…….(আকাশ)
কিন্তু হৃদয় কোনো কথা বলছেনা,চুপ করে বসে আছে।
—-হৃদয় তোমার কি হয়ছে,ঢাকা থেকে আসার পর ঠিক মতো কথা বলছোনা।…….(শ্রুতি)
—কিভাবে কথা বলবো আমি তোমার সাথে,এর থেকে আর ভালো ভাবে কথা বলতে পারবো না।…….(হৃদয়)
—-ওহ তাই তো।আসলে এখন আর আমায় তোমার ভালো লাগেনা।নিশ্চই আমার থেকেও ভালো কাও কে পেয়ে গেছো।তাই তো এখন আমার সাথে কথা বলতেও ভালো লাগেনা।…..(শ্রুতি)
—হে তাই,বুঝতেই যখন পেরেছো তাহলে আমায় বিরক্ত করো না। প্লিজ, আমায় একা থাকতে দাও প্লিজ।…….(হৃদয়)
হৃদয়ের এই কথা শুনে শ্রুতি কাদতে কাদতে চলে গেলো।
—-হৃদয় কি হয়ছে তর,কেন শ্রুতির সাথে এমন করলি তুই।…..(আকাশ)
আকাশের এই কথা শুনে হৃদয় আকাশ কে জড়িয়ে ধরে কাদতে লাগলো আর বললো তকে সব বলবো পরে। শ্রুতি বুঝতে পারছেনা ঢাকা যাওয়ার পর হৃদয়ের কি এমন হলো যে এতো পালটে গেলো।
রাত প্রায় ১২ টা শ্রুতি বেলকনি তে বসে বসে কাদছে আছে আর ভাবছে হৃদয়ের সাথে কাটানো দিন গুলোর কথা।কত সুখের ছিলো সেই দিন গুলি।বাকিটা জীবন এক সাথে কাটানোর কথা দিয়ে ছিলো তাদের দুজনের।কিন্তু হৃদয় যে এভাবে মাঝ পথেই তাকে ছেড়ে দিবে এটা কোনো দিন ভাবতেও পারেনি শ্রুতি।
দেখতে দেখতে প্রায় ৩ মাস হয়ে গেছে।এর মধ্যে শ্রুতি অনেক বার চেষ্টা করেছে তাদের সম্পর্ক টা ঠিক করতে আবার আগের মতো করতে।কিন্তু হৃদয় বার বার তাকে এড়িয়ে গেছে।ঠিক মতো কথাও বলে না শ্রুতির সাথে।শ্রুতি অনেক বার তাকে ফোন দিয়েছে কিন্তু ফোন ধরেনি হৃদয়।
শ্রুতির বাবা মা তাকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে।কারন তারা শ্রুতির সব কিছু বুঝতে পেরেছে।তাই বার বার বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছে।শ্রুতি কে পরের সপ্তাহ পাত্র পক্ষ দেখতে আসবে।
আজ শ্রুতি বসে বসে ভাবছে,যে সম্পর্কের কোনো মানে নেই,কি লাভ সেই সম্পর্ক রেখে শুধু শুধু কষ্ট পাওয়ার জন্য।হৃদয় তাকে মনে হয় ভুলেই গেছে।হুম যাবার কথা কারন নতুন কাও কে হয়তো পেয়েছে।শ্রুতি ঠিক করলো কাল কলেজে যেয়ে সব সম্পর্ক শেষ করে দিবো।সে যদি অন্য কাওকে পেয়ে সুখি হতে পারে,তাহলে আমি কেন পারবো না।এসব ভাবছে আর চোখের জল ফেলছে শ্রুতি।

আজ শ্রুতি কলেজ এ এসেছে।এসে দেখতে পেলো আকাশ,ফারিয়া আর মিম কে।
—–আকাশ হৃদয় কোথাই।……(শ্রুতি)
—-ক্যাম্পাসেই একা একা বসে আছে।কারো সাথে ঠিক মতো কথাও বলে না।……(আকাশ)
—চলো,আজ তাকে মুক্তি দিবো আর তার সামনে কোনোদিন ভালবাসার দাবি নিয়ে তার কাছে যাবো না।……(শ্রুতি)
—ঠিকই বলেছিস শ্রুতি,যে তকে আর আর ভালবাসে না।তুই কেন তাকে ভালবেসে শুধু শুধু কষ্ট পাবি।……(ফারিয়া)
—-হুম__চল।……..(শ্রুতি)
এই বলে সবাই হৃদয় এর কাছে গেলো।
হৃদয় একা মাথায় হাত দিয়ে বসে আছে।
এমন সময়…..
—জানি হৃদয় তুমি এখন অন্য জন কে ভালবাসো।আমি আর কখনো ভালবাসার অধিকার নিয়ে তোমার সামনে আসবো না।এতো দিন ভালবাসা নামের মিথ্যা অভিনয় করার জন্য ধন্যবাদ।
—-সবই যখন বুঝতে পারছো তাহলে বার বার আমায় বিরক্ত করতে আসো কেন।প্লিজ আমায় একা থাকতে দাও।…..(হৃদয়)
—হ্যা আজকের পর থেকে তকে আর কোনো দিন তকে আর বিরক্ত করতে আসবো না।তর দেয়া অনেক অবহেলা আর কষ্ট সহ্য করেছি আর না।আজ কের পর থেকে তর ছায়ায় দেখবো না আমি।তুই একটা স্বার্থপর।জিবনে সব চেয়ে বড় ভুল করে ছিলাম তর মতো ছেলেকে ভালবেসে।আর না ভালো থাকিস,,,,,,,(রাগের মাথায় আরো অনেক কিছু বললো শ্রুতি)।…..(শ্রুতি)
..
শ্রুতি এই সব বলে চলে গেলো কাদতে কাদতে।
“”
“”
হৃদয় মাথা নিচু করে বসে আছে।আকাশ খেয়াল করলো হৃদয় এর চোখ দিয়ে পানি বেরুচ্ছে।
—কিরে এখন কাদিস কেন,তুই এটাই চেয়েছিলি যে শ্রুতি তর থেকে চলে যাক।আজ তো তর আনন্দের দিন।কিন্তু কাজ টা তুই ঠিক করলি না।কি কারনে তুই এমন করলি।……..(আকাশ)

হৃদয় কিছু বলছেনা চুপ করে বসে আছে কাদছে।

আজ এই পর্যন্তই।
আগামীকাল শেষ পর্ব এর জন্য অপেক্ষা করুন।

3 responses to “অপূর্ন ভালবাসা (পর্ব-৩)”

  1. Rasel
    (administrator)

    Nice

  2. ridoymini
    (author)

    দারুন

Leave a Reply

Related Posts

অপূর্ন ভালবাসা (পর্ব-৪+শেষ)

Posted By: - 6 days ago - 2 Comments

অপূর্ন ভালবাসা (পর্ব-২)

Posted By: - 1 week ago - 1 Comment

ভালোবাসার পুনর্বাসন

Posted By: - 1 week ago - 4 Comments

অপূর্ন ভালবাসা (পর্ব-১)

Posted By: - 2 weeks ago - 2 Comments